Home / সচেতনতা / বিয়ের আগে স্ত্রী সম্পর্কে যে বিষয় গুলো জেনে রাখা জরুরি

বিয়ের আগে স্ত্রী সম্পর্কে যে বিষয় গুলো জেনে রাখা জরুরি

সুখি দাম্পত্য মানেই একটি কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে, তবুও যতটা সোজা ভাবা হয় বিষয়গুলো আসলে ততটা সহজ নয়।

স্ত্রী এমন কেউ নন যে পছন্দ না হলেই বদলে ফেলবেন। বরং সে পরিস্থিতি যেন না হয়, সে কারণে বিয়ের আগেই কিছু খোঁজখবর করে নেয়া ভালো। বিয়েতে কিছু বিষয় একটু ভালো করে জেনে নেবেন। এতে সব শেষে লাভ হবে আপনাদের দুজনেরই। অতীত সম্পর্কের ব্যাপারেও যথেষ্ট ধারণা রাখুন :-

বিয়ের পর স্ত্রীর অতীত থেকে একজন প্রেমিক বা ভালোবাসার পুরুষ উঠে আসলে নিশ্চয়ই আপনার ভালো লাগবে না? কিন্তু সেই সম্পর্ক যদি “সারপ্রাইজ” হিসাবে দেখা দেয় বিয়ের পর, তাহলে সমস্যা। তাই আগেই জেনে রাখুন স্ত্রীর পুরনো সম্পর্কের ব্যাপারে, যেন ভবিষ্যতে এই ব্যাপারটি আর আপনাদের মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি করতে না পারে। সবচেয়ে ভাল হয় যে সকল ছেলে বা মেয়ে বিবাহ পূর্ব অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক রাখে তাদের পরিহার করা।

জেনে নিন তাঁর পারিবারিক ইতিহাস :- শুধু পরিবারের সবার নাম-পরিচয়ই নয়, নিকট আত্মীয়দের পেশা এবং অন্যান্য জরুরী তথ্যগুলো জেনে রাখুন। সাথে এটাও জেনে রাখুন যে কোন বংশানুক্রমিক ব্যাধি আছে কিনা। পরিবারে কোন অপরাধের রেকর্ড বা অন্য কোন অসামাজিক বিষয়ের রেকর্ড আছে কিনা।

পরিবার গঠন ও দাম্পত্য সম্পর্কে তিনি কী ভাবেন :-বিয়ের আগেই এই বিষয়গুলো পরিষ্কার করে নেয়া দরকার। কারণ সংসার করবেন আপনারা, পরিবার গঠন করবেন আপনারা। এক্ষেত্রে পরস্পরের মূল্যবোধ যদি না মেলে, সেক্ষেত্রে এই লম্বা জীবন পার করাটা খুবই কষ্টকর হয়ে দাঁড়াবে। তাই আগেই জেনে নিন দাম্পত্য সম্পর্কে তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী।

তাঁর অসুস্থতা সম্পর্কেও জানুন :- এই বিষয়টি জানার দিকে আমরা খুব একটা মনযোগ দেই না। কিন্তু নারী ও পুরুষ উভয়েরই পরস্পরের মেডিকেল হিস্ট্রি জেনে রাখা উচিত। একসাথে চলার পথে অসুখ বিসুখের আক্রমণ হবেই, জীবনে ঘটতে পারে নানান দুর্ঘটনাও। তাই দুজনেরই শারীরিক যে কোন সমস্যা ও মেডিকেল হিস্ট্রি জেনে রাখা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

তাঁর বন্ধুদের চিনে নিন :- হবু স্ত্রীর বন্ধু বান্ধবদের সাথে পরিচিত হয়ে নিন। এতে খুব পরিষ্কার ধারণা পাবেন স্ত্রীর পছন্দ-অপছন্দ এবং তাঁর পরিচিত সার্কেল সম্পর্কে। এবং জানতে পারবেন এমন অনেক অজানা বিষয় যেগুলো অন্য কোনভাবে জানা সম্ভব না। স্ত্রীর ধ্যান ধারণার মূল্যায়ন করতে সুবিধে হবে আপনার। এবার আসুন আরো বাস্তবতার গভীরে যাই – আপনার হবু স্ত্রী ধর্মীয় বিষয়ে কতটা জ্ঞান রাখেন এবং সে অনুযায়ী কতটা চলাফেরা করেন সে দিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখুন। শুধু মাত্র এই বিষয়টির প্রতি যদি বিশেষ গুরত্ব দেন তাহলেও আপনি বিয়ের পর অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলা থেকে অনায়াসেই রেহাই পাবেন।

ফেসবুক আইডি থেকে মন্তব্য করতে পারেন

টি মন্তব্য